Citizenship Amendment Bill 2019 (নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল) কী?

Citizenship Amendment Bill 2019 লোকসভা 9 ডিসেম্বর 2019 এ পাস করেছে। এই বিলের উদ্দেশ্য হ’ল পাকিস্তান, বাংলাদেশ এবং আফগানিস্তান থেকে র্ধমীয় কারনে প্রতারিত হিন্দু, খ্রিস্টান, শিখ, জৈন, বৌদ্ধ, এবং পারসি সম্প্রদায়ের অবৈধ অভিবাসীদের ভারতীয় নাগরিকত্ব দেওয়া।অনেকগুলি রাজনৈতিক দল এই বিলটির বিরোধিতা করছে কারণ মুসলিম সম্প্রদায় এই 6 টি সম্প্রদায়ের অন্তর্ভুক্ত নয়।

ভারত একটি ধর্মনিরপেক্ষ, সার্বভৌম এবং শান্তিকামী দেশ। সম্ভবত এটি বিশ্বের একমাত্র দেশ যা ‘বৈচিত্র্যে ঐক্য’ স্লোগানকে ন্যায়সঙ্গত করেছে। সম্ভবত এ কারণেই অনেক দেশের নাগরিকরা ভারতীয় নাগরিকত্ব চান।

আমাদের এই নিবন্ধে জানা যাক; এই বিলটি কী, এর বৈশিষ্ট্যগুলি কী এবং কিছু রাজনৈতিক দল কেনএর বিরোধিতা করছে?

Citizenship Amendment Bill 2019
Citizenship Amendment Bill 2019

Citizenship Amendment Bill 2019 কী?

নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল, 2019-এ পাকিস্তান, বাংলাদেশ এবং আফগানিস্তান থেকে আগত ৬ টি সম্প্রদায়ের অবৈধ শরণার্থীদের ভারতীয় নাগরিকত্ব দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। 

এই 6 সম্প্রদায়ের অন্তর্ভুক্ত; হিন্দু, বৌদ্ধ, শিখ, খ্রিস্টান, জৈন এবং পার্সি

Foreigners Act, 1946 এবং Passport (Entry into India) Act, 1920 এর অধীনে অবৈধ অভিবাসীদের কারাবন্দি বা নির্বাসন দেওয়া যেতে পারে। এই দুটি আইনই কেন্দ্রীয় সরকারকে ভারতে বিদেশিদের প্রবেশ, প্রস্থান এবং বাসস্থান যাচাই করার ক্ষমতা দেয়।

ভারতীয় নাগরিকত্বের cut-off তারিখ কী?

নাগরিকত্বের কাট-অফ তারিখ 31 ডিসেম্বর, 2014, যার অর্থ আবেদনকারীর এই তারিখ বা তার আগে ভারতে প্রবেশ করা প্রয়োজন।  

নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল, 1955 কী বলে?

নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল, 1955 -এ ভারতের নাগরিকত্ব পাওয়ার জন্য 5 টি শর্তের বর্ণনা দিয়েছে, যেমন 

[1] জন্মসূত্রে নাগরিকত্ব

[2] বংশোদ্ভূত নাগরিকত্ব

[3] নিবন্ধনের মাধ্যমে নাগরিকত্ব

[4] প্রাকৃতিকীকরণের মাধ্যমে নাগরিকত্ব

[5] অঞ্চল অন্তর্ভুক্ত করে নাগরিকত্ব

Citizenship Amendment Bill, 1955 অনুসারে কোনও ব্যক্তির স্বাভাবিকভাবে নাগরিকত্ব অর্জনের জন্য কমপক্ষে 11 বছর ভারতে অবস্থান করা বাধ্যতামূলক করা হয়েছিল, যা পরে 6 বছরে কমিয়ে আনা হয়েছিল। Citizenship Amendment Bill, 2019 এ এই সময়কাল হ্রাস পেয়ে ৫ বছর করা হয়েছে ।

Citizenship Amendment Bill 2019 এর মূল বিষয়

[1] নাগরিকত্ব আইন 1955 এর অধীনে, কোনও ব্যক্তি যদি ভারতীয় বংশোদ্ভূত হন (যেমন, ভারতের প্রাক্তন নাগরিক বা তাদের বংশধর) বা ভারতীয় বংশোদ্ভূত কোনও ব্যক্তির স্ত্রীকে OCI কার্ড দেওয়া যেতে পারে। বর্তমানে 2019 সালের আইনটি  OCI কার্ডগ্র হীতা কে ভারতে ভ্রমণ, কর্ম এবং পড়াশোনা করার সুবিধা দেয় 

[2] নাগরিকত্ব (সংশোধন) বিল, 2019 বলছে নাগরিকত্ব অর্জনের বিষয়ে:

(ক) আবেদনকারীকে 31 ডিসেম্বর, 2014 বা তার আগে ভারতে প্রবেশ করতে হবে।

(খ) অবৈধভাবে অভিবাসীদের অবৈধ অভিবাসন বা নাগরিকত্ব সম্পর্কিত সমস্ত আইনি প্রক্রিয়া বন্ধ থাকবে। 

তবে বিলে মেঘালয়, মিজোরাম এবং ত্রিপুরার উপজাতি অঞ্চলে অবৈধ অভিবাসীদের এই সুবিধা দেওয়া হবে না।

[3] Citizenship Amendment Act, 2016 অনুযায়ী আফগানিস্তান, বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের হিন্দু, শিখ, বৌদ্ধ, জৈন, পার্সী এবং খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের এই অবৈধ অভিবাসীদের ভারতীয় নাগরিকত্বের জন্য আবেদন করার আগে ভারতে কমপক্ষে 6 বছর থাকতে হবে।

তবে বর্তমান নাগরিকত্ব (সংশোধন) বিল 2019 এই সময়কালটি 6 বছর থেকে কমিয়ে 5 বছর করবে।

এই বিলের বিরোধিতা কেন?

মূলত এই বিলের বিরোধিতা করা হয়েছে কারণ এটি 3 টি দেশ থেকে মুসলিম সম্প্রদায়ের অবৈধ অভিবাসীদের নাগরিকত্ব দেয় না। সমালোচনার পিছনে আর একটি কারণ হ’ল এটি ভারতীয় সংবিধানের 14 অনুচ্ছেদের বিধান লঙ্ঘন করে।

সুতরাং এটি ছিল Citizenship Amendment Act, 2019 এর কিছু বিধান যা 3 টি দেশের অবৈধ অভিবাসীদের ভারতীয় নাগরিকত্ব দেয়।

Updated: December 12, 2019 — 10:55 pm